1. admin@shadhin-desh.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:৪০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
শেরপুরে হেলমেট না থাকলে মিলবেনা তেল কার্যক্রমের উদ্বোধন নরসিংদীর মনোহরদীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যাঁরা মাদারিপুরে পল্লী বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিলে বিপাকে গ্রাহক ফ্রান্স প্রবাসী সালাউদ্দিন প্রাণে মারার হুমকি ও মানহানির কারণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদানে “সচেতনতামূলক” সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁয় লিগ্যাল এইডের গণশুনানী অনুষ্ঠিত চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভা ও মাসিক অপরাধ সভা অনুষ্ঠিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্লিনিক মালিক সমিতির কমিটি গঠন শিবগঞ্জ সীমান্তে পিস্তল-গুলিসহ যুবক আটক রাঙামাটিতে অস্ত্রসহ ৫ চাঁদা কালেক্টর আটক

“বারান্দা ও মেঝেতে শয্যা পেতে নিচ্ছেন চিকিৎসা” 

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১০ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ৮৯ বার পঠিত

উলিপুরে হাসপাতালে ঠান্ডাজনিত রোগীর চাপ 

আবুল কালাম আজাদ, কুড়িগ্রাম জেলা  প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঠান্ডাজনিত রোগীর চাপ বেড়েই চলছে। বারান্দা ও মেঝেতে শয্যা পেতে নিচ্ছেন চিকিৎসা। তবে বেশির ভাগই চিকিৎসা নিচ্ছেন শাসকষ্ট ও ডায়রিয়া রোগী। শীতের দাপট বেশি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হঠাৎ করে বেড়ে গেছে ডায়রিয়া ও ঠান্ডাজনিত রোগীর চাপ। রোগীদের মধ্যে শিশু ও বয়স্করাই সবচেয়ে বেশি। ডায়রিয়া আক্রান্ত অধিকাংশ শিশু বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিন উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, ঠান্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। শয্যায় ডায়রিয়া ও অন্যান্য রোগে আক্রান্ত রোগীদের মধ্য বয়স্ক ও শিশুর সংখ্যাই বেশি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হওয়ায় প্রয়োজনের তুলনায় শয্যা না থাকায় অনেক রোগীকে বাধ্য হয়ে হাসপাতালের বারান্দা ও মেঝেতে বিছানা পেতে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন রোগীর সাথে থাকা স্বজনেরা। তারা বলেন, এখন প্রচন্ড শীতের সাথে সাথে পাল্লা দিয়েছে হাড় কাঁপানো ঠান্ডা। প্রচন্ড ঠান্ডায় ঠান্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। ফলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শয্যার তীব্র  সংকট দেখা দিয়েছে। বাধ্য হয়ে মেঝেতে ও বারান্দায় বিছানা পেতে চিকিৎসা নিচ্ছি বলে জানান তারা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে প্রায় শতাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ও শাসকষ্ট রোগী আন্তঃবিভাগে ভর্তি ছিলো। প্রতিদিন হাসপাতাল ছাড়ছেন ১০ থেকে ১৫ জন রোগী। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর মধ্যে বেশির ভাগই ছিল শিশু যা ৫ বছরের নিচে।

হাসপাতালে ঠান্ডাজনিত রোগীর এতই চাপ চিকিৎসা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে চিকিৎসা নিতে আসা আলোমনি (১৩ মাস), মিজানুর রহমান (১৬ মাস), হুমায়রা (৭ মাস), সিয়াম (২২ মাস) সহ আরও অনেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ সকল শিশুর মধ্যে বেশিরভাগই ডাইরিয়া রোগীই বেশি। এদের মধ্যে অনেক শিশু প্রায় সুস্থ হয়েছেন। আবার অনেকে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরছেন।

সিনিয়র স্টাফ নার্স সান্তনা খাতুন বলেন, প্রয়োজনের তুলনায় শয্যা না থাকায় ডায়রিয়ার অনেক রোগীকে বারান্দা থেকেই চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। তবে সেখানেও তাদের চিকিৎসার কোন প্রকার ত্রুটি হচ্ছে না। সঠিক ভাবে সেবা যত্ন নেয়া হচ্ছে। তবে যে সকল রোগী গুরুতর অসুস্থ হচ্ছে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

উপজেলা পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা মেশকাতুল আবেদ এ বিষয়ে বলেন, তীব্র শীতের কারণে প্রচন্ড ঠান্ডা বাড়ার কারণে শিশুদের ডায়রিয়া ও বয়স্কদের শ্বাসকষ্ট জনিত রোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। আমরা আক্রান্তদের সাধ্যমত চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করছি। তাদের সঠিক চিকিৎসা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ইতোমধ্যে গ্রহন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 © Shadhin Desh
Theme Customized By Theme Park BD
error: Content is protected !!